1. mdgulamrabbi24@gmail.com : মোহাম্মদ গোলাম রাব্বি : Mohammed Gulam Rabbi
  2. mehedirana18@gmail.com : Md. Mehedi Hasan : Md. Mehedi Hasan
বহরিয়া বাজারে কথিত ইউপি সদস্য হোসেন বেপারীর নেতৃত্বে আচমকা হামলায় আহত ১৫
সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন

বহরিয়া বাজারে কথিত ইউপি সদস্য হোসেন বেপারীর নেতৃত্বে আচমকা হামলায় আহত ১৫

চাঁদপুর টেলিভিশন ডেস্কঃ
  • আপডেট : শনিবার, ২১ মার্চ, ২০২০
  • ২৮৭ দেখেছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চাঁদপুর সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়নের বহরিয়া বাজারে কতিপয় সন্ত্রাসী কর্তৃক আচমকা হামলা চালিয়ে বেশ ক’জনকে আহত ও দোকানপাট ভাংচুরের তান্ডব চালায়। প্রায় ঘন্টাব্যাপী আচমকা হামলায় কিছু বুঝে উঠার আগেই সন্ত্রাসীরা প্রায় ১৫ জনকে গুরুতর আহত করে। আহতদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে চিকিৎসকরা দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গত ৯ মার্চ সোমবার রাত ৯টায় বহরিয়া বাজারের লাগোয়া শ্রীরামপুর গ্রামে বসবাসকারী ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার হোসেন বেপারীর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাজারে উঠে ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ সেলিম খানকে উদ্দেশ্য করে গালমন্দ শুরু করে। এক পর্যায়ে সেখানে অবস্থানকারী বেশ ক’জন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতাকর্মী এবং ব্যবসায়ীরা বিষয়টি জিজ্ঞাসাবাদ করতে এগিয়ে আসলে হোসেন বেপারীসহ সন্ত্রাসীরা তাদের উপর আচমকা হামলা শুরু করে। শুধু হামলা নয়, একদিকে দোকানপাটসহ রাস্তায় থাকা যানবাহনও ভাংচুরের তান্ডব চালায়। এ হামলায় আওয়ামী লীগ নেতা শফিক খান, যুবলীগ নেতা সুমন খান, নুরু মল্লিকের ছেলে আলাল মল্লিক (২৬), হাফেজ খানের ছেলে নাসির খান (৩৫), নুরু খানের ছেলে সুমন খান (৩৫), সফিক মিয়ার ছেলে আরাফাত (২৭), অহিদ মিজির ছেলে নান্টু মিজি (৩৫) ও রুবেল আহত হয়। এর মধ্যে নুরু মল্লিকের ছেলে আলাল মল্লিক (২৬), হাফেজ খানের ছেলে নাসির খানের (৩৫) অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
এদিকে ঘটনার সাথে সাথে চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিন ও ওসি তদন্ত মোঃ হারুনুর রশিদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ফোর্স ঘটনাস্থলে এসে পৌছে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
আহতদের সূত্রে জানা যায়, ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার হোসেন বেপারীর নেতৃত্বে এ হামলার ঘটনা ঘটে। মেম্বার হোসেন বেপারীর পক্ষের কয়েকজন লোক সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে বহরিয়া বাজারে অবস্থান করতে থাকে। এরপর বাজার থেকে মানুষজন তাদের বাড়ীঘরে ফিরে গেলে রাত ৯টায় সুপরিকল্পিতভাবে ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ সেলিম খানের ইমেজকে ক্ষুন্ন করার লক্ষে হোসেন বেপারী গংরা এ হামলার ঘটনা ঘটায়। এ হামলায় আরো জড়িত ছিলেন নাজুমল হোসেন, জাকির, মাইনু, শরীফ, ফরিদ, ফিরোজসহ ২০/২৫ জনের সন্ত্রাসী গ্রুপ।
দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলায় মুহুর্তের মধ্যে বহরিয়া বাজার যেন রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এদের হামলায় ১৫/২০টি দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। বাজারে অবস্থানরত স্থানীয় জনগণ কিছু বুঝে উঠার আগেই মেম্বার হোসেন বেপারীর নেতৃত্বে এ হামলা চালানো হয়।

ফেসবুক মন্তব্য

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

বিজ্ঞাপন

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি.
© All rights reserved 2020 ChandpurTelevision.Com